মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

দর্শনীয় স্থান

 

ড্রীম ল্যান্ড থীম পার্ক

 

        ২০০০ইং সালে ৪ঠা এপ্রিল বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ জনাব রশিদুন্নবী (চান) নিজ উদ্যোকে প্রতিষ্টা করেন। পলাশবাড়ী উপজেলা সদর হইতে ০.৫০কিলো মিটার যাহা বগুরা মহাসড়কের পশ্চিম পাশ্বে  অবস্থিত। এখানে পার্ক সহ বিভিন্ন প্রজাতির শিল্পকলা মহিষীগনের চিত্র কলা সহ প্রণী ও মানুষের ভাস্কর বিভিন্ন প্রজাতির জীব জন্তর ও খেলা ধুলার যাবতীয় ব্যবস্থা রয়েছে

 

২নং হোসেনপুর ইউনিয়নের করতোপাড়া গ্রামে একটি ঐতিয্য বাহী কালি মন্দির।

যাতায়াত: 
২নং হোসেনপুর ইউনিয়ন মেরীরহাট বাজার হইতে প্রায় ২ কিলোমিটার পশ্চিমে ১নং ওয়ার্ডে হোন্ডা, সাইকেল, রিক্সা ইত্যাদির মাধ্যমে যাওয়ায়।

 ১নং ওয়ার্ডের  ঠাকুর বাড়ী ঘোড়াঘাট সংলগ্ন কালি মন্দির  আছে। এখানে প্রতি বছর  কালিপূজাকে কেন্দ্র করে বহু দূরদুরান্ত হতে অনেক লোক আসে এবং মেলা বসে।

অবস্থান: 
১নং ওয়ার্ড,২নং হোসেনপুর ,ইউনিয়ন,পলাশবাড়ী, গাইবান্ধা।
 

কাশিয়াবাড়ী মায়া মনি কালী মন্দির ও পঞ্চবটী মহাশশ্মান, কাশিয়াবাড়ী।

সংযোগানন্দ গিরি স্মৃতি মন্দির

 শত বছরের কাল পরিক্রমায় কিশোরগাড়ী ইউনিয়নস্থিত কাশিয়াবাড়ী গ্রামে শ্রীশ্রী সংযোগানন্দ গিরির স্মৃতি মন্দির রয়েছে। এই মন্দিরে প্রতি বছর বুদ্ধ পুর্ণিমাতে মহাসমারোহে তিন দিনব্যাপী বিভিন্ন  পুজা ও অনুষ্ঠান হয়ে থাকে। এ পুজানুষ্ঠানের  মধ্যে রয়েছে— প্রথম দিন অধিবাস ও সমবেত উপাসনা। দ্বিতীয় দিন উষালগ্নে মঙ্গল আরতি, প্রভাতী শিবসঙ্গীত, শিবপূজা, বিষ্ণুপূজা, গুরুপূজা, সপ্তসতী চণ্ডী পাঠ, পুষ্পাঞ্জলি ও দুপুরে মহাপ্রসাদ বিতরণ। বিকালে ধর্মসভা ও বিশ্বশান্তিকল্প্পে সমবেত প্রার্থনা এবং রাতে স্মৃতি মন্দিরে মহাশক্তির পূজা ও সমবেত প্রার্থনা। তৃতীয় দিন শীতলা দেবীর পূজা ও হোম। এ উপলক্ষে কিশোরগাড়ী সকল হিন্দু ধর্মর জনবহল হতে বহু পুন্যার্থীর শুভাগমন ঘটে।

যাতায়াত - পলাশবাড়ী উপজেলা রাব্বী মোড় থেকে সিএনজি/ রিক্সা যোগে কাশিয়াবাড়ী বাজারে আসা যায়।

ভাড়ার হার- ২৫ টাকা। (জনপ্রতি)

বধ্য ভূমি

    যাতায়াত -পলাশবাড়ী উপজেলা রাব্বী মোড় থেকে সিএনজি/ রিক্সা যোগে কাশিয়াবাড়ী বাজার হইতে দক্ষিনে ২কিঃমি আসতে হবে।

ভাড়ার হার- ১৫ -১০ টাকা। (জনপ্রতি)


Share with :

Facebook Twitter